সহীহ হাদিসের আলোকে নামাযের গুরত্ব ! নামায বর্জনকারীদের প্রতি মহানবীর ৫টি সতর্কবাণী !

ইসলামী জীবন দর্শনে (বিশ্বস্রষ্টার অস্তিত্ব, তার প্রেরিত বার্তাবাহকগন, ঐশীগ্রন্থ, ফেরেস্তাকুল, পরজগত, তাকদির এবং মৃত্যুর পরবর্তি জীবন) এই সাতটি বিষয়বস্তুর উপর ইমান আনার পর সবচেয়ে গুরত্বপূর্ন বিষয় হল সালাত আদায় করা। একজন অমুসলিম যখন ইমানের স্বাক্ষ্য দিয়ে ইসলামী জীবন দর্শনের সীমান্তে

পবিত্র কুরআনে বর্ণিত প্রতিশ্রুত কেয়ামতের দৃশ্য ! পর্ব-২

পবিত্র কুরআনে বর্ণিত প্রতিশ্রুত কেয়ামতের দৃশ্য ! পর্ব-২

সম্মানিত ব্লগার ভাইগন মাত্র তিন মিনিটে কেয়ামতের ভয়ংকর দৃশ্যগুলো দেখে নিন ! অতপর যখন কান ফাটানো (সেই ভয়ংকর) আওয়াজ (পৃথিবীর দিকে) আসতে থাকবে তখন মানুষ ভয়ে পালাতে থাকবে নিজের আপন ভাইয়ের কাছ থেকে (পালাতে থাকবে) তার মাতা, তার পিতা, তার

পবিত্র কুরআনে প্রতিশ্রুত কেয়ামতের দৃশ্য ! পর্ব-১

১. না। আমি শপথ করছি (মহা বিশ্বের বিপর্যয় সৃষ্টিকারী ভয়ংকর সেই) কিয়ামত দিবষের। ২. আর না। আমি শপথ করছি তিরস্কারকারী নফসের। ৩. মানুষ কি মনে করে যে, (মরনের পর) আমি তার হাড় সমুহ একত্র করতে পারবো না ? ৪. কেন

পবিত্র কুরআনের আলোকে নামাযের গুরত্ব ! নামায বর্জনকারীদের বিরূদ্ধে কুরআনের ভয়ংকর সতর্কবাণী !

বর্তমান সময়ে মুসলিম ভাইদের নামায বর্জন করা একটি স্বাভাবিক কর্মনীতি হয়ে দাড়িয়েছে অথচ এই নামায হল দ্বীন ইসলামের একটি মৌলিক স্তম্ভ। মহানবীর পূর্বে অন্যান্য নবী রাসুলদের উম্মতের উপরও স্রষ্টার পক্ষ থেকে নামায ফরজ করা হয়েছিল। এমন কোন রাসুল নেই উম্মতকে

ইসলামের দৃষ্টিতে ধর্মিয় জ্ঞান অর্জনের গুরত্ব এবং মাদরাসায় না গিয়ে এই জ্ঞান আয়ত্ব করার উপায় !

ইসলামের দৃষ্টিতে ধর্মিয় জ্ঞান অর্জনের গুরত্ব এবং মাদরাসায় না গিয়ে এই জ্ঞান আয়ত্ব করার উপায় !

মুসলিম জাতীর একটি বিরাট অংশ এখনো দৃয়তার সঙ্গে বিশ্বাস করে ধর্মের পাশাপাশি ইসলাম একটি বিশ্বজনীন জীবন দর্শন। বিশ্বস্রষ্টা থেকে আগত এই পবিত্র জীবন দর্শন জাহেলিয়াতের অসংখ্য প্রাচির ভেঙ্গে সমগ্র বিশ্বের আনাচে কানাচে এখন তার বিচরন অথচ এই দর্শনের আগমন ঘটেছিল

তাফসীর ও হাদিস গ্রন্থ সহ পৃথিবী বিখ্যাত ২ শতাধিক বাংলা ইসলামী বই ডাউনলোড ফ্রি !

তাফসীর ও হাদিস গ্রন্থ সহ পৃথিবী বিখ্যাত ২ শতাধিক বাংলা ইসলামী বই ডাউনলোড ফ্রি !

”কুরআন হাদিসের আলোকে ধর্মিয় জ্ঞান অর্জনের গুরত্ব” বই ডাউনলোড করার পূর্বে উপলদ্ধি করা প্রয়োজন কেন আমরা ইসলামী জ্ঞান অর্জন করব। হয়ত সকলেই অবহিত যে, ইসলামী জ্ঞান অর্জন প্রত্যেক মুসলিম নর নারীর উপর ফরজ করা হয়েছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ইসলামী জ্ঞান

পবিত্র কুরআনের অত্যান্ত গুরত্বপূর্ন ৩৪৬ টি আয়াত !

বিশ্ব সভ্যতায় ইসলাম এবং আল কুরআনের অবদান কতটুকো চিন্তাশীল ব্যক্তি মাত্রই বিষয়টি উপলদ্ধি করে থাকবেন। ধরনীতে এমন কোন জনপদ নেই যেখানে এই মহান গ্রন্থের কোন না কোন কল্যানময় প্রভাব নেই। যুগে যুগে অমুসলিম দার্শনিকগন পর্যন্ত একে এক মহাবিষ্ময়কর গ্রন্থরূপে অভিহিত