২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী থাকবেন শেখ হাসিনা!

বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বগুড়ায় দেয়া বক্তব্য নিয়ে শংকিত নয় আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন দলের নীতি-নির্ধারকরা মনে করেন, ২০১৯ সাল পর্যন্ত বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো যাবে না। তিনি প্রধানমন্ত্রী আছেন এবং সাংবিধানিকভাবেই ক্ষমতায়

বাংলাদেশ এবং আমরা

বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে ১৯৭১ সালে এক রক্তক্ষয়ী সংরামের মাধ্যমে কেবল মাত্র সবাই একটি স্বাধীন , সুন্দর, সমৃদ্ধ, সাম্প্রদায়ী সম্প্রীতিতে ভরপুর সমাজে বাস করব।

ঘুম

কুল ছাপিয়ে ঘুম আসছে চোখে, দুপুর রাত! গেড়ো মন্ত্র কিছুটা জানাও হে জাদুকর! কিছুটা দেখাও মোহমন্দ্র দ্বিধাহীন শেষ পাপড়ি খুলে কতটা শাপান্ত শেষে রক্তমূলে এইসব মাদকতা কেটে যাবে? কতদূর আর হেটে যাবে? ডুবে যাচ্ছি ঘুমের প্লাবনে অথচ এই ঘুম চাইনি

”আমি দলের জন্য প্রান দেব ; দল আমাকে কি দেবে________,,, ???”

আসুন ভাইয়ে ভাইয়ে মারামারি কাটাকাটি ভুলে কাঁধে কাঁধ রেখে গড়ে তুলি একটি সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ । যে যেই রাজনৈতিক দলকেই সাপোর্ট করুক না কেন সবার পরিচয় একই , আমরা বাংলাদেশী । একবারও কি ভেবে দেখছি না, রাস্তার মোড়ে গুলি খেয়ে

হায়রে রাজনীতি

কয়েকদিন আগেও শুনতাম মানুষ গালি দিত এই বলে, তুই মানুষ না আমেলীগ। আর গতকালকে শুনলাম, তুই মানুষ না রাজাকার। শুধু তাই না তুই মানুষ না শিবির এইটাও শুনলাম। এখন শুধু অপেক্ষা, কবে শুনব তুই মানুষ না, বিএনপি। যাই হোক আমি

ওবামা হচ্ছেন সবচেয়ে বড় মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী: নোয়াম চমস্কি

সারা বিশ্বে যে গুপ্তহত্যা অভিযান চলছে তার নেতৃত্ব দিচ্ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। আমেরিকার খ্যাতনামা শিক্ষাবিদ ও দার্শনিক নোয়াম চমস্কি একথা বলেছেন। ভয়েস অব রাশিয়াকে দেয়া এক সাক্ষাত্কারে চমস্কি আরও বলেন, ওবামা হচ্ছেন সবচেয়ে বড় মানবাধিকার লঙ্ঘনকারী। প্রেসিডেন্ট ওবামার নেতৃত্বেই

ফেলানী হত্যার প্রতিবাদে আবারো পুরোনো উদ্দমে বাংলাদেশী হ্যাকাররা

গতকাল ৭ই জানুয়ারী ছিলো ফেলানীর দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী । এ উপলক্ষে বাংলাদেশের প্রথম হ্যাকার টিম বাংলাদেশ সাইবার আর্মি ১০৫০ এরও অধিক ভারতীয় ওয়েবসাইট হ্যাক করে দেখিয়েছে কিভাবে প্রতিবাদ করতে হয় । বাংলাদেশের হ্যাকারদের কাছে হ্যাকিং হয়ে উঠছে প্রতিবাদের ভাষা। হ্যাক হওয়া

মনিপুর স্কুলের বিজ্ঞানমনস্ক মানুষ গড়ার অঙ্গিকার(!) ।

১৯শে ডিসেম্বর সকাল ১০টা বেজে ৩০মিনিট। মনিপুর স্কুলের শাখা ক্যাম্পাস রূপনগরের স্কুল মাঠ ছোট ছোট শিশু (যাদের বয়স ৬/৭ হবে) ও তাদের অভিভাবক দ্বারা প্রাণচঞ্চল হয়ে উঠেছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই পূর্ব নির্ধারিত ভর্তি ফর্মের আবেদনের প্রেক্ষিতে কোমল-মতি শিক্ষার্থীদের ভাগ্য নির্ধারণ হতে