কুল ছাপিয়ে ঘুম আসছে চোখে,
দুপুর রাত!
গেড়ো মন্ত্র কিছুটা জানাও হে জাদুকর!

কিছুটা দেখাও মোহমন্দ্র দ্বিধাহীন
শেষ পাপড়ি খুলে
কতটা শাপান্ত শেষে রক্তমূলে
এইসব মাদকতা কেটে যাবে?
কতদূর আর হেটে যাবে?

ডুবে যাচ্ছি ঘুমের প্লাবনে
অথচ এই ঘুম চাইনি কখনো
চেয়েছি পার্থিব আফিমের ঘুমঃ
যতটা নিঝুম
রাত্রি-শ্বাপদের চলাচল।

আমি কেন এক সমুদ্র হলাহল
পান করে নীলকণ্ঠ হব?
বাইরে কাল জোছনার তরল দ্রবণ, দ্রব
সত্য ঘুমের আসঞ্জন।

এত ঘুম কেন জাদুকর ?
কত কিছু দেখাবে আবিল বলেছিলে
শুভঙ্কর ভূলে ভূলে করিনিতো আঁচ।
ইপ্সিত নিবিষ্ট পিশাচ!!
এমন অনিঃশেষ মাটিময় মাঠ
এখনো লুকানো বুকে,! …গভীর ,বিরাট জাগরণ চাই
অথবা দাও অবিমিশ্র ঘুম।

ঘুমের বন্যা এলো যখন আরশিতে কলহ প্রধূম!

জাদুকর!
না হয় খুলে ফেল গেঁড়ো,
ছিড়ে ফেল রশি রজ্জু সব
বসে থাকি পূর্নাঙ্গ নীরব
হয়ে। কাল ব্যাধি হয়ে। পরানে
বিজলি নেই। সরীসৃপ স্বপ্ন হানে
চোখে।
গোলকে
অবিশ্বাসীর শান্তি নেই কোনখানে
কোন মানে পাবে না তুমি সায়াহ্নের গুনিনের বানে।

ঘুম

Leave a Reply