তেজস্ক্রিয় বিপদের আশঙ্কায় জাপানের টোকিওতে বাংলাদেশী দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা করেছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। বিশ্বের আর কোন দেশ এখন পর্যন্ত টোকিওতে দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা করে নি, বরং তারা জাপান সরকারের পাশে থেকে সহযোগীতা করে যাচ্ছে। টোকিওতে তেজষ্ক্রিয় বিপদের আশঙ্কা এখনও দেখা দেয় নি। সেখানকার স্কুল কলেজগুলো সব স্বাভাবিকভাবে চলছে, সাধারণ মানুষের জীবনযাত্রাও স্বাভাবিক।
জাপানের কাছে বাংলাদেশ কম ঋনী না, এ পর্যন্ত অসংখ্য উন্নয়নমূলক কাজে জাপান বাংলাদেশের পাশে থেকে সাহায্য করেছে। জাপানের বিপদে বাংলাদেশের যেখানে তাদের পাশে থেকে সাহায্য করা উচিত ছিল, কিন্তু দূতাবাস বন্ধ করে সরকার বাংলাদেশকে খুবই বিব্রতকর ও লজ্জ্বার মধ্যে ফেলে দিল। এমন যদি হতো অন্যান্য দেশগুলো সব তাদের দূতাবাস বন্ধ করে দিচ্ছে টোকিওতে তাহলেও মানা যেত!
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দূতাবাস বন্ধের ঘোষণার মধ্য দিয়ে সবচেয়ে ক্ষতি যেদিক থেকে করেছেন তা হলো, বন্ধুপ্রতিম একটি দেশের চরম দুর্দিনে সংকট সামাল দেওয়ায় দেশটির চালানো সর্বাত্মক প্রচেষ্টার প্রতি চূড়ান্ত অবমাননার নিদর্শন তুলে ধরা।
এ ঘটনা শোনার পর জাপানি এক সাংবাদিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন, ‘ওদের বলবেন, শুধু টোকিও থেকেই নয়, বরং এই দেশটি থেকেই ওরা যেন চলে যায় এবং আর যেন ফিরে না আসে।’
অনুমান করা যায়, দেশের চূড়ান্ত সংকটের সময় অবমাননাকর এক ঘোষণা আসার কারণেই বাংলাদেশের প্রতি বন্ধুত্বের মনোভাব পোষণ করা সেই জাপানি নাগরিক মনের দুঃখেই কথাগুলো বলেছেন।

টোকিওতে দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা করে বাংলাদেশকে বিব্রতকর অবস্হায় ফেললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

Leave a Reply